রাজনীতি

একটি অরনী চরিত্রের বিশ্লেষণ ও শোভন-নামা

১- একটি রাজনৈতিক সংগঠনের নেতা শোভনের থেকে আমি ব্যাক্তি শোভন কে খুব ভালোভাবে চিনি ও জানি। একই এলাকার ছেলে ও মামার ক্লাস ফ্রেন্ড হওয়ায় তার বিষয়ে অনেক কিছুই আমার জানা রয়েছে। যতটুকু জানি, একজন ব্যাক্তি শোভন নম্র ভদ্র বিনয়ী ও অত্যন্ত মেধাবী। সাদাসিধে একটি ছেলে। এক অন্য রকম উদারতার মানুষ। স্কুল জীবন থেকেই ছিলেন মেধাবী একজন ছাত্র। উনার পরিবার ভূরুঙ্গামারীতে নামকরা একটি পরিবার। উনার পরিবারের তিন প্রজন্ম আওমালীগের রাজনীতির সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। রাজনীতি তাদের রক্তে। রাজনীতি তাদের নেশায়।

২- প্রথমেই জানানোর প্রয়োজন, এবারই প্রথমবার সিন্ডিকেটের বাহিরে থেকে শেখ হাসিনার পছন্দে রেজাওনুল হক চৌধুরী শোভন কে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি করা হয়। কিন্তু, এইবার ডাকসু নির্বাচনে সাবেক কয়েকজন ছাত্রলীগ নেতাদের সিন্ডিকেটের কারনে বলির পাঠা হতে হয়।
এতে আমার দুঃখ নেই। ক্ষোভ ও নেই। কেননা, আমি ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত নই। আশেপাশের সবাই রাজনীতি করলেও আমি একেবারে একপেশে। রাজনীতি একেবারেই পছন্দ নয়। কিন্তু, আজ এই লেখাটি লিখতে বাধ্য হলাম, একটি ঘটনা আমাকে ব্যথিত করেছে। নাস্তিক বামপন্থি নেত্রী অরণীর কে নিয়ে ছোট একটি ঘটনাকে প্রিন্ট মিডিয়া সহ অনলাইন নিউজপোর্টাল গুলোতে ফলাও করে প্রচার করা হচ্ছে।
ভিডিও টি আমি ১ বার ২ বার নয়, ১০ বারের বেশি দেখেছি।

৩- ভিডিও টি তে শোভন অরনীর সাথে কথা বলার জন্য যায়। আশে পাশে অনেক ছাত্র-ছাত্রী ও ছিলেন। হঠাৎ শোভনের পিছন থেকে একটি ছেলে শোভন ও অরনীর ছবি তুলতে চাইলে অরনী বলে উঠে থাক ভাই লাগবে না। তখনিই শোভন সেখান থেকে চলে যায়। শোভন চলে আসার পর অরনী উদ্ভট ভাবে বলে বসে “আমার রুচির অবস্থা এতো খারাপ হয় নি; আমরা সন্ত্রাসী দের সাথে ছবি তুলি না”।

এই বিষয়টি নিউজ মিডিয়া ফলাও করে প্রচার করছে। এখানে অরনীকে বীরের বেশে নিউজগুলো তে দেখানো হচ্ছে।

চ্যানেল আই অনলাইন এর নিউজঃ

অরণি সেমন্তি খান বলেন, রোকেয়া হলের ঘটনার সময়ে শোভনকে সরাসরি নির্দেশ দিতে দেখেছি।  আমরা যে প্যানেলগুলো নির্বাচন বর্জন করেছিলাম, তাদের মিটিং চলছিলো তখন ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে শোভন আসে। তিনি নুরের সঙ্গে কুশল বিনিময় করতে যায়, তারপর আমার কাছে আসে। বলে, হ্যাঁ কথা বলবো ছবি তুলবো।আমি তখন তাকে বলি, গতকাল রোকেয়া হলে যে হামলা হয়েছে, সেটার নেতৃত্ব আপনি দিয়েছেন। আমার কাছে ভিডিও আছে।  বলেছেন, ওকে মার, ওকে ধর। এরপর তো কথা বলাতো কি ছবি তোলার প্রশ্নই আসে না। আমি তাকে বলেছি সন্ত্রাসীদের সঙ্গে ছবি তুলবো না।

চ্যানেল আই অনলাইনে – অরনী বলে সে আমার কাছে এসে বলে, আমরা কথা বলবো ছবি তুলবো!

কিন্তু ভিডিও দেখলে বুঝা যায় শোভন একটিবারও বলে নাই, আমরা ছবি তুলবো। বেশির ভাগ নিউজই এই বিষয়টি উল্টে দেয়া হয়েছে। শোভন ছবি তুলতে বলে নাই, অথচ বলা হচ্ছে সে ছবি তুলতে বলেছে। ছবি উঠানোর কথাটি শোভনের পিছন থেকে একটি ছেলে এসে বলে।

আশ্চর্যের বিষয়, এখানে অরনী বীর হলো কিভাবে?? সে একটি রাজনৈতিক সংগঠনের লিডারের সাথে অশোভন আচরণ করেছে। লিডারের বাহিরে সে একজন ব্যাক্তি শোভন। আর এই ব্যাক্তি শোভন যদি সত্যিই সন্ত্রাসী হতো সেখানেই নাস্তিক বাম নেত্রী অরনীকে সন্ত্রাসী কাকে বলে বুঝিয়ে দিয়ে আসতো। অরনী নিজেও একজন নেত্রী, তার উচিত অন্য একজন নেতার সাথে সুন্দরভাবে ব্যবহার করা। তবেই তো রাজনীতিতে সুশৃঙ্খলা আসবে। তবেই তো মানুষ রাজনীতি কে ভালবাসবে। অরনীর কাছে কি শিখলাম আমরা? অনেকেই এই নাস্তিককেই বাহবা দিচ্ছি! দুদিন আগেও এই নাস্তিককে গালিগালাজ করেছি! এখন???? অরনী এই করেছে সেই করেছে। ভাই একটু ভাবুন! অরনী কি করেছে! অরনী কি কোনো ভালো আচরণ করেছে?

তার কাছ থেকে কি শিক্ষালাভ করলাম আমরা? প্রতিপক্ষ কে হেয় করে কটু কথা বলে কি মহানুভবতা? নাকি প্রতিপক্ষের নোংরা কথাকে এড়িয়ে যাওয়া কে মহানুভবতা বলে??? যেটি শোভনের ব্যবহারে প্রকাশ পেয়েছে তাকেই মহানুভবতা বলে।

৪- আমি ছাত্রলীগ পছন্দ করি না, কিন্তু ব্যাক্তি শোভন কে পছন্দ করি। এলাকা তে তার কোনো খারাপ ব্যাকগ্রাউন্ড নাই, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েও নেই। তাই, শোভন মামার সাথে এরকম আচরণ কে মানতে পারি না। তিনি যে মহানুভবতা, ত্যাগ কাল দেখিয়েছেন এগুলা কেনো তাল মেরে তিল বানানো হচ্ছে? একজন নেতার বাহিরে সে একজন ব্যাক্তি। এই ব্যাক্তি শোভনই সিন্ডিকেটের বাহিরে থেকে এসে একটি সংগঠনের লিডার হয়েছেন। এই ব্যাক্তি শোভনই আজ বলির পাঠা।
একজন রাজনৈতিক শোভনকে আপনি দলীয়গত কারনে অপছন্দ করতে পারেন, কিন্তু একজন ব্যাক্তি শোভন কে আপনি কখনো কটু কথা বলতে পারবেন না। তিনি এতটাই নমনীয় তার ঘোর শত্রুদের কেও তিনি সম্মান করেন।

তিনি ছাত্রলীগ করে বলেই কি তার সদাচরনের দাম নেই? একজন কর্মীর অপকর্মের জন্য পুরো সংগঠন কে যেমন দায়ী করা যায় না, শুধুমাত্র সে ছাত্রলীগ করে বলেই তাকে কেও সন্ত্রাসী বলতে পারে না।

আসলেই, উনার সৎ মহানুভবতা, উদারতা, দূর্বলতার জন্য এক চুনোপুটিও বীর বনে যায়।

ট্যাগ
আরও দেখুন

নুর আমিন লেবু

This is Nur Amin Lebu. I’m a dreamer, I’m a believer, I’m a doer. I’m well known for my personal skills. I’m a quick learner & self motivated person. I've learned to play guitar by myself without anyone’s help. It’s a tough job for most people. I was born & brought up in Bhurungamari, Kurigram, Rangpur, Bangladesh. I’ve spend my childhood in the midst of greenery in a remote village. My father is a businessman & my mother does what she loves the most, she takes care of us. I’m frank & pretty friendly.

৮ টি মন্তব্য

  1. শোভন ভাই কে আমি ব্যাক্তিগতভাবে চিনি না। আমি ছাত্রলীগের রাজনীতিতে বিশ্বাসী নই। তবে ভিডিওটি দেখেছি। তাতে মনে হয়েছে যে মহিলাটি কথাটি বলেছেন তাতে মনে হয়েছে যে তিনি মানুষকে সম্মান দিতে জানেন না। আর তিনি বারবার আদর্শের কথা বলছিলেন।আমি জানিনা সেটি কোন আদর্শ যা মানুষকে সম্মান দিতে শেখায় না।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: লেখা কপি করা যাবে না.. Content is protected..
Close
Close